Class 8 History Final Model Activity Task Part 8

Class 8 History Final Model Activity Task Part 8

Final Model Activity Task History Full Marks 50

Class 8 History Final Model Activity Task Part 8

১. ‘ক’ স্তম্ভের সাথে ‘খ’ স্তম্ভ মেলাও :

উত্তর:

ক – স্তম্ভখ – স্তম্ভ
১.১ আবওয়াব (ঘ) বেআইনি কর
১.২ সাহুকার(ক) মহাজন
১.৩ দাদন(খ) অগ্রিম অর্থ
১.৪ রায়ত(গ) কৃষক

২. সঠিক তথ্য দিয়ে নীচের ছকটি পূরণ করাে : 

উত্তর: 

বিদ্রোহএকজন নেতার নামকারণ (যে কোনো একটি)
নীল বিদ্রোহদিগম্বর বিশ্বাসনীলকর সাহেবেরা নীল চাষের জন্য ‘দাদন’ বা অগ্রিম অর্থ দিয়ে চাষীদের নীল চাষ করতে বাধ্য করতো। আর একবার দাদন নিলে তা শোধ হতনা।
বারাসাত বিদ্রোহ তিতুমীরবারাসাতসহ বিস্তীর্ণ অঞ্চলে জমিদার, নীলকর ও কোম্পানীর অপশাসন।
সাঁওতাল বিদ্রোহসিধুইউরোপীয় কর্মচারীরা সাঁওতালদের জোর করে রেলপথ তৈরির কাজে লাগাত ও অত্যাচার করত।
মুন্ডা বিদ্রোহবিরসা মুন্ডামুন্ডাদের জমি ধীরে ধীরে বহিরাগত বা দিকুদের হাতে চলে যায়।

৩. সত্য বা মিথ্যা নির্ণয় করাে :

৩.১ ১৮৭৬ খ্রিস্টাব্দে লর্ড নর্থব্রুক জারি করেন নাট্যাভিনয় নিয়ন্ত্রণ আইন। 

উত্তর: সত্য

৩.২ ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দের ১৬ অক্টোবর বাংলা বিভাজনের পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করা হয়।

উত্তর: সত্য

৩.৩ পাঞ্জাবে লালা লাজপত রাই-এর নেতৃত্বে শিবাজি উৎসব চালু হয়।

উত্তর: মিথ্যা

৩.৪ সাঁওতালরা ঔপনিবেশিক শাসকের শােষনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেছিল। 

উত্তর: সত্য

৪. সঠিক শব্দ বেছে নিয়ে শূন্যস্থান পূরণ করাে :

৪.১ ১৭১৭ খ্রিষ্টাব্দে ___________ কে বাংলার নাজিম পদ দেওয়া হয় (মুর্শিদকুলি খান/সাদাৎ খান /আলিবর্দি খান)। 

উত্তর:  মুর্শিদকুলি খান

৪.২ ১৭২২ খ্রিষ্টাব্দে ___________ এর নেতৃত্বে অযােধ্যা এবং স্বশাসিত আঞ্চলিক শক্তি হিসাবে গড়ে ওঠে (নিজাম-উল-মুলক/সাদাৎ খান/সফদর জং)।

উত্তর: সাদাৎ খান

৪.৩ ১৭২৪ খ্রিষ্টাব্দে হায়দ্রাবাদ রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন ___________ । (ফররুখশিয়র / নিজাম-উল-মুলক/সাদাৎ খান)।

উত্তর:  নিজাম-উল-মুলক ।

৪.৪ ১৮৭৮ খ্রিষ্টাব্দে দেশীয় মুদ্রণ আইন জারি করেন ___________ (লর্ড লিটন/লর্ড রিপন/লর্ড বেন্টিঙ্ক/লর্ড ক্যানিং)। 

উত্তর:  লর্ড লিটন ।

৫. চার-পাঁচটি বাক্যে উত্তর দাও :

৫.১ কে, কি উদ্দেশ্যে সিভিল সার্ভিস চালু করেন? 

উত্তর: কোম্পানি-প্রশাসনের অধীনে আমলাতন্ত্রকে সংগঠিত করার উদ্দেশ্যে লর্ড কর্নওয়ালিস সিভিল সার্ভিস ব্যবস্থা চালু করেন। তার উদ্দেশ্য ছিল ভারতের ব্রিটিশ প্রশাসনকে দুর্নীতিমুক্ত করা এবং প্রশাসনিক কাজকর্ম দ্রুততা ও দক্ষতার সাথে সম্পন্ন করা।

৫.২ ব্যাপটিস্ট মিশন শিক্ষার প্রসারে কেমন ভূমিকা পালন করেছিল? 

উত্তর:  ১৮০০ খ্রিস্টাব্দে ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের পাশাপাশি শ্রীরামপুরে ব্যাপটিস্ট মিশন স্থাপন করা হয়। শিক্ষা বিস্তারে এই মিশনের তরফ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়। নিজেদের মুদ্রণ যন্ত্র বসিয়ে তারা বাংলা ভাষায় বিভিন্ন লেখা ছাপাতে শুরু করেন। মিশনারিদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য উইলিয়াম কেরি ভারতীয় মহাকাব্যগুলি ইংরেজী ভাষায় অনুবাদ করেন। তাছাড়া বাইবেলের একটি অংশকে বিভিন্ন ভারতীয় ভাষায় অনুবাদ করেছিলেন কেরি।

৫.৩ পণ্ডিতা রমাবাঈ কেন স্মরণীয়?

উত্তর:  উনিশ শতকে পশ্চিম ভারতে নারীশিক্ষায় বিশেষ উদ্যোগী হয়েছিলেন পণ্ডিতা রমাবাঈ। প্রাচীন ভারতীয় শাস্ত্রে শিক্ষিত ব্রাহ্মণ পরিবারের মেয়ে পণ্ডিতা রমাবাঈ সমস্ত সামাজিক বাধা উপেক্ষা করে এক শুদ্রকে বিয়ে করেন। পরে বিধবা অবস্থায় নিজের মেয়েকে নিয়ে ইংল্যান্ডে গিয়ে তিনি ডাক্তারি পড়েন। বিধবাদের জন্য তিনি একটি আশ্রমও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

☛ সমস্ত বিষয়ের উত্তর পেতে: Click Here

৫.৪ ইয়ং বেঙ্গল দলের দুটি সীমাবদ্ধতার উল্লেখ করাে।

উত্তর: হেনরি লুই ভিভিয়ান ডিরোজিওর ছাত্রদের বলা হত ইয়ং বেঙ্গল গোষ্ঠী বা দল। এই ইয়ং বেঙ্গল দলের দুটি সীমাবদ্ধতা হল-
(i) ব্রিটিশ শাসন ও ইংরেজি শিক্ষার প্রতি তাদের পুরো সমর্থন ছিল।
(ii) এই দলের অনেক সদস্য পরবর্তীকালে নিজেদের পুরোনো মতামত ও অবস্থান থেকে সরে গিয়েছিলেন

৫.৫ ইলবার্ট বিলকে নিয়ে কেন বিতর্কের সূচনা হয়েছিল? 

উত্তর: গভর্নর জেনারেল লর্ড রিপনের আইনসভার সদস্য সি.পি. ইলবার্ট বিচার বিভাগীয় ক্ষেত্রে অসাম্য দূর করতে একটি বিলের মাধ্যমে ভারতীয় বিচারকদের ইউরোপীয়দের বিচার করার অধিকার দেন। এই বিলের প্রতিবাদে শ্বেতাঙ্গরা আন্দোলন শুরু করলে বিল প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। বিল প্রত্যাহার হলে ভারত সভার উদ্যোগে ভারতীয়রা আন্দোলন শুরু করেন। উভয়পক্ষের আন্দোলন ও পাল্টা আন্দোলন এর ফলেই ইলবার্ট বিলকে নিয়ে বিতর্কের সূচনা হয়েছিল।

৬. আট-দশটি বাক্যে উত্তর দাও :

৬.১ জমি জরিপ ও রাজস্ব নির্ণয়ের ক্ষেত্রে ঔপনিবেশিক প্রশাসন কী কী পদক্ষেপ নিয়েছিল? 

উত্তর: ভারতে ঔপনিবেশিক প্রশাসন যেসকল বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছিল তার মধ্যে জমি জরিপ ও তার ভিত্তিতে রাজস্ব নির্ণয় করার প্রক্রিয়াটিও ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এই বিষয়ে তারা নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি গ্রহণ করেছিল-
(i) পলাশি যুদ্ধে জয়লাভের পর কোম্পানি কলকাতা থেকে কুলুপ পর্যন্ত ২৪ টি পরগনার জমিদারি পায়। সেগুলির মাপজোকের জন্য জরিপদের খোঁজ করতে থাকেন। অবশেষে ১৭৬০ খ্রিস্টাব্দে ফ্র্যাঙ্কল্যান্ড জমি জরিপের কাজ শুরু করেন এবং তার মৃত্যুর পর হগ ক্যামেরন তার কাজ শেষ করেন।
(ii) ১৭৬৪ খ্রিস্টাব্দে জেমস রেনেল বাংলার নদীপথগুলি জরিপ করেন এবং মোট ১৬ টি মানচিত্র তৈরি করেন।
(iii) বক্সারের যুদ্ধে জয় ও দেওয়ানির অধিকার পাওয়ার পর বাংলার জমি জরিপ করে রাজস্ব নির্ণয়ে তৎপর হয় কোম্পানি। ১৭৭০ খ্রিস্টাব্দে মুর্শিদাবাদে কম্পট্রোলিং কাউন্সিল অব রেভেনিউ নামের কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়াও কমিটি অব রেভেনিউ নামে একটি আলাদা রেভেনিউ বোর্ড তৈরি হয়। ১৭৮৬ খ্রিস্টাব্দে এই বোর্ড কে নতুন করে সাজিয়ে নাম দেওয়া হয় বোর্ড অব রেভেনিউ। এই বোর্ড রাজস্ব বিষয় দেখাশোনা করতে থাকে।

☛ সমস্ত বিষয়ের উত্তর পেতে: Click Here

৬.২ ‘সম্পদের বহির্গমন’ বলতে কী বােঝাে?

উত্তর: সম্পদের বহির্গমন ভারতে ব্রিটিশ শাসনের একটি লক্ষ্যণীয় বৈশিষ্ট্য। উপনিবেশ হিসেবে ভারতের সম্পদকে ব্রিটেনে নানাভাবে স্থানান্তরিত করা হত। এর ফলে ভারতে অর্থনৈতিক উন্নয়ন হতো না বরং অবশ্যম্ভাবী হয়ে পড়ত দারিদ্র্য ও দুর্ভিক্ষ। এইভাবে দেশের সম্পদ বিদেশে চালান হওয়াকেই ‘সম্পদের বহির্গমন’ বলে উল্লেখ করা হয়।
ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির একমাত্র উদ্দেশ্য ছিল ভারতের অর্থ ও সম্পদ ব্রিটেনে স্থানান্তরিত করে ভারতের অর্থনীতিকে ব্রিটিনের স্বার্থে ব্যবহার করা। ১৮৪০ খ্রিস্টাব্দে এক ব্রিটিশ আধিকারিকের বক্তব্য থেকে জানা যায়, ভারত থেকে বছরে ২-৩ কোটি স্টার্লিং মূল্যের সম্পদ ব্রিটেনে যেত। আর তার বিনিময়ে ভারত সামান্য দামের কিছু যুদ্ধ সরঞ্জাম ছাড়া কিছুই পেত না। বাস্তবে ভারতে সম্পদ বহির্গমনের ক্ষেত্রে ব্রিটিশ শাসন ‘স্পঞ্জের মতো’ কাজ করত। ভারত থেকে সম্পদ শুষে ব্রিটেনে পাঠিয়ে দিত। হিসাবে দেখা গেছে ঊনবিংশ শতকে ব্রিটেনের জাতীয় আয়ের ২ শতাংশ ছিল ভারত থেকে নির্গত সম্পদ।

৬.৩ বিশ শতকের প্রথম দিকে বাংলায় গড়ে ওঠা বিভিন্ন গুপ্ত সমিতির পরিচয় দাও।

উত্তর: স্বদেশি আন্দোলনের শেষ দিকে বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী ধারার প্রধান ভিত্তি ছিল বিভিন্ন সমিতি। আপাতভাবে সমিতিগুলিতে শরীরচর্চা হলেও বিভিন্ন সমাজসেবামূলক বিভিন্ন কাজে সমিতিগুলি এগিয়ে আসত। তার মধ্যে দিয়ে মূলত ছাত্র ও যুবসমাজের মধ্যে স্বদেশির ভাবধারা প্রচার করা হত। মহারাষ্ট্র ও বাংলাসহ বিভিন্ন জায়গায় শরীরচর্চার প্রতিষ্ঠানগুলিকে কেন্দ্র করেই বিপ্লবী সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ সংগঠিত হতে শুরু হয়। ১৯০২ খ্রিস্টাব্দে কলকাতায় তিনটি ও মেদিনীপুরে একটি দল তৈরী হয়। এগুলির মধ্যে সতীশচন্দ্র বসু প্রতিষ্ঠিত অনুশীলন সমিতি অন্যতম বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান। অবশ্য এই সমিতিগুলির বিপ্লবী কার্যকলাপ গোপনে চালানো হতো। ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দে বঙ্গভঙ্গ-বিরোধী আন্দোলনের সময় থেকেই বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলে নতুন নতুন সমিতি প্রতিষ্ঠিত হতে থাকে। ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দে পুলিনবিহারী দাসের নেতৃত্বে ঢাকা অনুশীলন সমিতি তৈরী হয়। সারা বাংলাব্যাপী বিপ্লবীদের সম্মেলন আয়োজন করা হয়। অর্থ জোগাড় করার জন্য স্বদেশি ডাকাতির পাশাপাশি বোমা বানানোর উদ্যোগও নেওয়া হতে থাকে।

☛ সমস্ত বিষয়ের উত্তর পেতে: Click Here

1. You may also like: Class 8 Model Activity Task 2021 All Subjects

2. You may also like: কীভাবে ‘Student Credit Card’ এর জন্য আবেদন করতে হবে।

Class 8 Model Activity Task History 2021

Official Website: Click Here

Class 8 History Model Activity Task Part- 8

Class 8 History Final Model Activity Task Full Marks 50

অষ্টম শ্রেণীর ইতিহাস

4 thoughts on “Class 8 History Final Model Activity Task Part 8”

Leave a Comment

CLOSE

You cannot copy content of this page