kulekhara Pata Benefits: কুলেখাড়া পাতার উপকারিতা

কুলেখাড়া। হাজারো গুণে সমৃদ্ধ এই ভেষজ উদ্ভিটির নাম খুব কম লোকেই শুনে থাকবেন। গ্রামগঞ্জে গর্ভবতী মহিলাদের কুলেখাড়ার শাক খাওয়ার পরামর্শ দেন বাড়ির বয়স্ক লোকেরা। কারণ তারা বলেন কুলেখাড়ার পাতা রক্তাল্পতায় উপকারী। আসুন আজ আমরা জেনে নিই কুলেখাড়া পাতার এই রকম আরও আশ্চর্যরকমের উপকারিতা সম্পর্কে।

কুলেখাড়া পাতার পুষ্টি উপাদান:

প্রতি ১০০ গ্রাম কুলেখাড়া পাতায় যে পুষ্টি উপাদান রয়েছে-

পুষ্টি উপাদানপরিমান
কার্বোহাইড্রেট১২.২ গ্রাম
প্রোটিন৪.৬৯ গ্রাম
ফ্যাট০.১৩ গ্রাম
ফাইবার১.৮০ গ্রাম
পটাসিয়াম২৬৬ মিলিগ্রাম
আয়রন৭.০৩ মিলিগ্রাম
ক্যালসিয়াম২৭.৯৩ মিলিগ্রাম
সোডিয়াম৫৬.১ মিলিগ্রাম
ভিটামিন সি৫০.০৮ মিলিগ্রাম

রক্তাল্পতায় কুলেখাড়া পাতার উপকারিতা:

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, যেসব প্রাণীদের ৩ সপ্তাহ কুলেখাড়া পাতা খেতে দেওয়া হয় তাদের হিমোগ্লোবিনের মাত্রা এবং লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।
এর থেকে বোঝা যায় কুলেখাড়া পাতা হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সাহায্য করে। এক মাস বা তার বেশি সময় ধরে এই পাতা সেবন করলে অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতার সমস্যা দূর হয়। এই জন্যই গর্ভবতী মহিলাদের কুলেখাড়ার শাক খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। কারণ তাদের দেহে অনেকসময় রক্তের ঘাটতি দেখা যায়। তবে গর্ভাবস্থায় কুলেখাড়া পাতা খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন।

আরও পড়ুন: তুলসী পাতার উপকারিতা

কুলেখাড়া পাতার অন্যান্য উপকারিতা:

  • ১. কুলেখাড়া পাতা রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। তাই আপনার যদি ডায়াবেটিস রোগ থাকে তবে আপনার জন্য কুলেখাড়া পাতা অত্যন্ত উপকারী হতে পারে। আপনি এটি নিয়মিত শাক হিসেবে গ্রহণ করতে পারেন। তবে কুলেখাড়া পাতা খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন।
  • ২. কুলেখাড়া পাতায় antihelminthic বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তাই এই পাতা নিয়মিত সেবন করলে পেটের কৃমি দূর হবে।
  • ৩. গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, কুলেখাড়া পাতায় অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তাই এটি ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারে।
  • ৪. কুলেখাড়া একটি শক্তিশালী বেদনানাশক হিসেবেও ব্যবহৃত হয়। তাই শারীরিক ব্যথা অনুভব করলে ট্যাবলেটের পরিবর্তে কুলেখাড়ার পাতা খেলে দারুন উপকার পাবেন।
  • ৫. ডায়রিয়া ও আমাশয় নিরাময়েও কুলেখাড়ার পাতা ভীষণ উপকারী।
  • ৬. কুলেখাড়া পাতা পাকস্থলী ও লিভারের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • ৭. কুলেখাড়া পাতায় প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্যও রয়েছে এবং এটি হজমক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
কুলেখাড়ার উপকারিতা

করুন

আরও পড়ুন: মেথি খাওয়ার উপকারিতা

কুলেখাড়া পাতা কিভাবে খেতে হয়?

কুলেখাড়া পাতার রস খাওয়ার নিয়ম:

এক গুচ্ছ কুলেখাড়া পাতা নিন।
জলে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন।
পাতাগুলি ছোটো ছোটো করে কেটে অল্প জল মিশিয়ে মিক্সার মেশিনে পিষে নিন।
সবুজ রস ছেঁকে নিন।
এক কাপ জলে ১ চামচ কুলেখাড়ার রস ও ১ চামচ মধু মিশিয়ে প্রতিদিন পান করতে পারেন।

কুলেখাড়া পাতার রস প্রতিদিন কতটুকু খাবেন?

এই রস ১৫-২০ মিলিলিটার (১ টেবিল চামচ) করে দিনে দুবার ২/৩ সপ্তাহে ধরে পান করতে পারেন।

এছাড়াও, শাক হিসেবে কুলেখাড়া পাতা রান্না করে খেতে পারেন।

Disclaimer:
এখানে দেওয়া তথ্য শুধুমাত্র সাধারণ জ্ঞানের জন্য। এটি কোনো পেশাদার চিকিৎসকের পরামর্শের বিকল্প নয়। কোনো কিছু গ্রহণ করার আগে অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন।

👉 স্বাস্থই সম্পদ: Click Here

👉 Subscribe Our YouTube Channel: Click Here

আরও পড়ুন:

দ্রুত ঘুমিয়ে পড়ার ৮টি বৈজ্ঞানিক উপায়
আমাশয় রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

কাঁচা পেঁয়াজ খাওয়ার উপকারিতা

আমন্ড বাদাম খাওয়ার উপকারিতা

Keywords: Kulekhara Patar Upokarita

Leave a Comment

CLOSE

You cannot copy content of this page