শসার উপকারিতা ও অপকারিতা

শসার উপকারিতা ও অপকারিতা

শসা একটি সহজলভ্য সবজি। কিন্তু এই সহজলভ্য সবজিটির হরেক রকমের গুন রয়েছে। রূপচর্চা থেকে শুরু করে মেদ নিয়ন্ত্রণ- সবিছুতেই শসা অনেক উপকারী। আসুন জেনে নিই শশার কিছু উপকারিতা।

শসার ১৩ টি উপকারিতা:

১. শসার প্রায় ৯০ শতাংশই জল। তাই শসা খেলে আমাদের শরীরের জলের চাহিদা অনেকটাই মিটে যায়।

২. মাঝে মাঝে আমরা শরীরের ভিতরে ও বাইরে প্রচন্ড উত্তাপ অনুভব করি, বিশেষত গরমকালে। এই অবস্থায় একটি শসা খেয়ে নিলে অনেক আরাম পাবেন।

৩. শসার মধ্যে যে জল থাকে তা আমাদের দেহের বিষাক্ত বর্জ্য অপসারণে সাহায্য করে।

৪. নিয়মিত শসা খেলে কিডনিতে সৃষ্ট পাথরও গলে যায়।

আরও পড়ুন: লেবু জল খাওয়ার উপকারিতা

৫. প্রতিদিন আমাদের দেহে যে ভিটামিনের দরকার হয় তার বেশিরভাগই শসার মধ্যে রয়েছে। ভিটামিন- এ, বি ও সি আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শক্তির যোগান দেয়। সবুজ শাক ও গাজরের সঙ্গে শসা পিষে তার রস পান করলে ওই তিন ধরনের ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ হবে।

৬. শসায় উচ্চ মাত্রায় পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম ও সিলিকন আছে যা ত্বকের পরিচর্যায় বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৭. শসায় উচ্চ মাত্রায় পানীয় এবং নিম্ন মাত্রার ক্যালোরি যুক্ত উপাদান রয়েছে। তাই যারা দেহের ওজন কমাতে চান তাদের ডায়েট প্ল্যানে শসাকে অবশ্যই রাখতে হবে। স্যুপ এবং স্যালাডে বেশি করে শসা ব্যবহার করতে পারেন।

৮. কাঁচা শসা চিবিয়ে খেলে তা আমাদের হজম শক্তিও বাড়ে।

৯. নিয়মিত শসা খেলে দীর্ঘমেয়াদী কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

১০. শসা গোল করে কেটে চোখ বন্ধ করে চোখের পাতার উপর কিছুক্ষণ রেখে দিলে চোখের পাতার ময়লা যেমন দূর হয় তেমনি চোখের জ্যোতিও বাড়ে।

১১. শসা ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি দেয়, কোলস্টেরল কমায় ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

১২. শসা গোল করে কেটে মুখের মধ্যে রেখে জিভ দিয়ে উপরের তালুর সঙ্গে চাপ দিয়ে ৩০ সেকেন্ড রাখুন। শশার সাইটোকেমিক্যালের মধ্যে বিশেষ বিক্রিয়া ঘটিয়ে মুখের জীবাণু ধ্বংস করবে এবং মুখের দুর্গন্ধ দূর হবে।

১৩. শসা মধ্যে যে খনিজ উপাদান থাকে তা আমাদের চুল ও নখকে সতেজ ও শক্তিশালী করে তোলে। শশার মধ্যে থাকা সালফার চুলের বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে।

অতিরিক্ত শসা খাওয়ার অপকারিতা:

১. অতিরিক্ত শসা খেলে রক্তে গ্লুকোজের অভাব হতে পারে এবং রক্তের প্রবাহে সমস্যা উৎপন্ন হতে পারে।
২. অতিরিক্ত শসা খেলে অন্য খাবার কম খাওয়া হবে। ফলে কাজ করার শক্তি কমে যাবে।
৩. অতিরিক্ত পরিমানে শসা খেলে বদ হজম, গ্যাস, পেট ফাঁপা, পেট ব্যাথা, বমি ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
৪. ওজন কমানোর জন্য শুধুমাত্র শসা খেলে হিতে বিপরীত হতে পারে। কারণ পর্যাপ্ত পুষ্টি উপাদানের অভাবে শরীর দুর্বল হতে পারে।

সুতরাং আমাদের খাদ্য তালিকায় নির্দিষ্ট পরিমাণে শসা রাখলে অবশ্যই আমরা শসার উপকারিতা পাবো।

FAQs: Frequently Asked Questions

১. শসা খেলে কি ওজন কমে?

উত্তর: শসা একটি কম ক্যালোরি যুক্ত খাদ্য। ওজন কমানোর জন্য আমাদের কম ক্যালোরি গ্রহণ করতে হয় এবং বেশি ক্যালোরি খরচ করতে হয়। তাই শসা ওজন কমাতে ব্যবহার করা যেতে পারে।
তবে শুধুমাত্র শসা খেয়ে থাকলে অন্যান্য পুষ্টি উপাদানের অভাবে আমাদের শরীর ক্ষতিগ্রস্থ হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আপনার ডায়েট প্ল্যানে শসা রাখতে পারেন।

২. শসা খেলে কি গ্যাস হয়?

উত্তর: সাধারণত শসা খেলে গ্যাস হয় না। তবে অতিরিক্ত শসা খেলে বদ হজম, গ্যাস, পেট ফাঁপা, পেট ব্যাথা, বমি ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

৩. রাতে শসা খেলে কি হয়?

উত্তর: রাতে শসা খেলে বিশেষ কোনও ক্ষতিকারক প্রভাব দেখা যায় না। উপরন্তু, রাতে শসা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। কারণ এতে ভিটামিন, জল এবং ফাইবারের মতো অনেক গুণ রয়েছে যা শরীরকে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে।

বিশেষ দ্রষ্টব্য:
এখানে দেওয়া তথ্য শুধুমাত্র সাধারণ জ্ঞানের জন্য। এটি কোনো পেশাদার চিকিৎসকের পরামর্শের বিকল্প নয়। কোনো কিছু গ্রহণ করার আগে অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন।

👉 স্বাস্থই সম্পদ: Click Here

আরও পড়ুন:

লেবু জল খাওয়ার উপকারিতা

👉 Subscribe Our YouTube Channel: Click Here

বাংলা গল্প: Click Here

প্রবন্ধ রচনা: Click Here

Leave a Comment

CLOSE

You cannot copy content of this page